bangla-sydney
bangla-sydney.com
News and views of Bangladeshi community in Sydney












এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



নতুন বছরের একাল সেকাল
ড. ফেরদৌসী জাহান



আজ ২২ শে ডিসেম্বর ২০১৭। এই বছরের শেষ ওয়ার্কিং ডে। দেখতে দেখতে আরও একটা বছর পার হয়ে যাচ্ছে। শেষ দিনে মনটা কেন জানি ভারী হয়ে যায়। ডিসেম্বর মাস এলেই ভাবতে থাকি, জীবন থেকে মূল্যবান সময় চলে যাছে, সপ্তাহ চলে যাচ্ছে, শেষ হয়ে যাচ্ছে মাস, ঝরে যাবে আরেকটি বছরও!

মনে পরে যায় পুরাণ দিনের কথা। বিশটি বছর পার করলাম এই অফিসে (National Measurement Institute)। কোনো কোনো বছর এই সময়টাতে বাংলাদেশে গিয়েছি আর কোনো বছর এখানে এই অফিসে। বছর শেষের এই দশ দিন ছুটির জন্য অধির আগ্রহে অপেক্ষা করি। সিডনির এই ব্যস্ত জীবনে এই অবকাশ পেয়ে মনটা খুব খুশী থাকে। শেষ দিনটাতে তেমন কোনো কাজ করিনা। চেম্বারে অগোছালো কাগজ-পত্র গুছাই, ল্যাব গুছাই, ল্যাব এর ইন্সট্রুমেন্টগুলো সব ঠিক ঠাক আছে কিনা দেখে পাওয়ার অফ করি। কিছু কিছু দরকারি ইমেইল ছাড়ি, বন্ধুদের কাছে নিউ ইয়ার এর শুভেচ্ছা পাঠাই। পুরানো ইমেইল পড়ি, ভাল লাগে। দুপুরে নিত্যদিনের মত লাঞ্চ শেষ করে হাটতে বের হলাম আমাদের অফিসের সবুজ ছায়া ঘেরা নিরিবিলি রিং রোড ধরে। অফিসের কার পার্কগুলো স্বাভাবিক কারণেই ফাঁকাফাঁকা। Lanecove National Park এর নানাধরনের গাছগাছালি দিয়ে ঘেরা রিং রোড ধরে হাটতে হাটতে ভাবছিলাম আর মাত্র কটা দিন পরে আসছে নতুন বছর, ২০১৮।

আমাদের কালে ১লা জানুয়ারি'র প্রস্তুতি আর আজকালের ১লা জানুয়ারির প্রস্তুতির মধ্যে অনেক পার্থক্য। মনে পড়ে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় আমরা ৩১ ডিসেম্বর রাতে বসে Happy New Year এর কার্ড বানাতাম নিজেরাই। ডায়রি তে লিখতাম বছরের মনে রাখার মত দিনগুলোর কথা। রাত ১২ টার সময় ভাইবোনরা মিলে স্বাগতম জানাতাম নতুন বছরকে। টিভি তে দেখতাম ওয়ার্ল্ড এর অন্যান্য দেশের বর্ষ-বরণ।

আমরা ভাইবোনরা মিলে আগে থেকে ঠিক করতাম কি ভাবে দিনটি কাটাবো। সেইসময় আমাদের ধারনা ছিলো যেভাবে বছরের প্রথম দিনটা কাটাবো, সেভাবেই বছরের বাকি দিনগুলো যাবে। তাই আর কোনো দিন না পারলেও চেষ্টা থাকতো যেন ১লা জানুয়ারিতে ভোরে উঠে ফজরের নামাজটা পড়তে পারি, ভোরের নতুন সূর্যটা দেখতে পারি। তারপর সুন্দর করে বই-পত্র গুছিয়ে টেবিলে বসতাম। আগেই ঠিক করে রাখতাম কি পড়ব, কারণ এমন কিছু পড়বো না যেটা কঠিন মনে হবে অথবা বুঝতে পারবো না, তাহলে সারা বছর ভাল করতে পারবো। এমনই চিন্তাভাবনা ছিল আমাদের তখন। আমাদের মা বছরের প্রথম দিনে ভাল খাবারের ব্যবস্থা করতেন। চেষ্টা করতাম বছরের প্রথম দিনে একটা নতুন কাপড় পরতে।

আর এখনকার সময় সব কিছু কেমন যেন অন্যরকম। আমার মনে হয় না আমাদের ছেলেমেয়েরা এখন এইসব চিন্তাভাবনা করে। এখন তারা 31st night এ কি করবে, কাদের সাথে কখন ডার্লিং হারবার এ যাবে, কোন লোকেশন এ গেলে ভাল দেখা যাবে মিলিওন ডলারের world famous fireworks, কখন যেতে হবে, এইসব চিন্তা ভাবনা আর প্লানিং করে সময় কাটে তাদের। ৩১ ডিসেম্বর দুপুর থেকে সবাই যেয়ে ভিড় করে অপেরা হাউস এবং হারবারের চারপাশে। রাত ১২ টায় fireworks দেখে বাসায় ফিরতে ফিরতে রাত ৩ টা। নতুন বছরের প্রথম সকালটা ঘুমিয়েই কাটাবে, এমনকি দুপুরও যাবে ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে। তারপর দল বেঁধে যাবে মুভি দেখতে। ব্যাস কাটলো মহা আনন্দে নতুন বছরের প্রথম দিন। নাহ, এতে কোন ক্ষতি নেই, বছরেরে সব দিনগুলো যেন এভাবে হেসে খেলে আনন্দে কেটে যায়, এই কামনা করি।

Wish you a very Happy New Year 2018.





ড. ফেরদৌসী জাহান, ক্যাসেল হিল, সিডনি




Share on Facebook                         Home Page



                            Published on: 30-Dec-2017